প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি ও দর্শনার্থীদের মন রাঙাতে লালপুর গ্রীন ভ্যালী পার্কের বিকল্প নাই। গ্রীন ভ্যালী পার্ক নাটোরকে অপার সৌন্দর্যের রাজত্বে আসীন করেছে। বনলতা সেন, রানী ভবানী, গণভবন, চলনবিল, মিনি কক্সবাজার পাটুল আর কাচাগোল্লার জন্য আগে থেকেই দেশবাসীর কাছে বিখ্যাত হয়ে আছে নাটোর। এবার নাটোরকে আরো এক ধাপ রাঙিয়ে তুলতে দেশের বিপুল সংখ্যক বিনোদপ্রেমী ও দর্শনার্থীদের মনের খোরাক মেটাতে নাটোরের লালপুরে তৈরি হয়েছে গ্রীন ভ্যালী পার্ক। উদ্বোধনের আগে ও পর থেকে দর্শনার্থী ও বিনোদন প্রেমীদের নজরে এসেছে।

 

 

২৫ শে জানুয়ারী ২০১৯ বর্নিল আয়োজনের মধ্যে দিয়ে উদ্বোধন হয়েছে নাটোরের লালপুরবাসির স্বপ্নের, গর্বের ও অহংকারের একটি প্রতিষ্ঠান গ্রীন ভ্যালী পার্ক লিমিটেড। যাকে কেন্দ্র করে নতুন করে লালপুরকে চিনবে দেশবাসী। দেশের উষ্ণতম ও উঁচু এলাকা হিসেবে দেশবাসীর নিকট পরিচিত লালপুর। নাটোর, রাজশাহী, পাবনাকুষ্টিয়া জেলার প্রায় মধ্যবর্তী এলাকা লালপুর। এজন্য সড়ক প

??, রেল পথ ও নদী পথে অনয়াসেই আসা যায় লালপুরে। দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে সহজেই মাইক্রোবাস, বাস ও মোটর সাইকেল যোগে আসতে পারেন লালপুর। এছাড়া রেল পথে আব্দুলপুর রেলওয়ে জংশনে নেমে মাত্র ১০ কিলোমিটার দক্ষিনে এলেই দেখা মিলবে পার্কটির। লালপুর সদর থেকে পার্কটির দূরত্ব মাত্র ১ কিলোমিটার। সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে আনন্দ-বিনোদনের লক্ষ্যে গ্রামের মধ্যে যাতায়াতের ব্যবস্থা সহ গড়ে তোলা হয়েছে নিরিবিলি পরিবেশে পার্কটি। শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত সবাই নিশ্চিন্তে বিনোদনের জন্য আসতে পারেন এ পার্কটিতে। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান পিকনিক স্পট হিসেবে সুন্দর, পরিপাটি ও সকল সুবিধার দিক মাথায় রেখে পছন্দের তালিকায় রাখতে পারেন পার্কটিকে। পার্কের কারণে এলাকার বেকার যুবক-যুবতীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া পার্কের পাশেই বিভিন্ন খেলনা সামগ্রী ও বাহারি দোকান গড়ে উঠেছে।

 

 

এক নজরে দেখে নিন পার্কটিতে আপনাদের জন্য যেসব ব্যবস্থা রয়েছে। পার্কের সুবিধা সমুহঃ পিকনিক স্পট, শ্যুটিং স্পট, এ্যাডভেঞ্চার রাইডস, কনসার্ট এন্ড প্লে-গ্রাউন্ড, নিজস্ব বিদ্যুৎ সুবিধা, নামাজের সু-ব্যবস্থা, সিকিউরিটি সার্ভিসের ব্যবস্থা, ডেকোরেটর সুবিধা, গাড়ি রাখার ব্যবস্থা, ক্যাফটেরিয়া শপ কর্ণার, সভা-সেমিনার এর জায়গা এর জায়গা, আবাসিক ব্যবস্থা সহ নানা ধরনের সুবিধা বিনোদনের জন্য রয়েছে স্পীডবোট, প্যাডেল বোট, বুলেট ট্রেন, মিনি ট

?রে, নাগরদোলা, পাইরেট শীপ, ম্যারিগোরাউন্ড, হানি সুইং ইত্যাদি। এছাড়া প্রায় চল্লিশ এক জমির উপর বিস্তৃত নয়নাভিরাম লেক, অত্যন্ত মনোরম পরিবেশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত সুস্থ্য বিনোদনের ব্যবস্থা। পিকনিট স্পট বা সভা-সেমিনার সহ যে কোন বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করতে পারেন। গ্রীন ভ্যালী পার্কে দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়। দর্শনার্থীরা বলেন, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি ও পরিবার পরিজন নিয়ে স্বপ্নের অনুভূতি নিয়ে সময় কাটানোর অপূর্ব স্থান। গোপালপুর পৌরসভার মেয়র মৌলাম বলেন, গোপালপুরে কর্মসংস্থান ও বেকারত্ব দূরকরনে পার্কর ভূমিকা ব্যাপক। দূর থেকে যেন মনে হয় স্বপ্নের লীলা ভূমি।

 

 

 

‍Source

 swadeshbani.com