}

বাংলাদেশের অন্যতম বিখ্যাত ও বৃহত্তম জেলা হল ময়মনসিংহ। এটি একটি প্রাচীন শহর ও বলা যায়। কারন অনেক আগে থেকেই ময়মনসিংহ নামটি পাওয়া যায় বিভিন্ন বই পুস্তকে। বিভিন্ন যুগে যেসব বংশ বা রাজারা এই দেশ শাসন করেছে তাঁদের সবার বর্ণনাতে আমরা ময়মনসিংহের নামটি রয়েছে। আমাদের প্রবন্ধটি এই ঐতিহাসিক ময়মনসিংহ কে নিয়ে। আজ আমরা এর ইতিহাস নিয়ে কিছুটা আলোকপাত করব।

 

ময়মনসিংহ নামটি আমরা যেখানে বেশি পাই বা এই এলাকার প্রধান ঐতিহ্য বলতে যা বুঝি তা হল “মৈমনসিংহ গীতিকা”। প্রাচীন পুঁথি ও লোকগাথার সঙ্কলন হিসেবে এর বহুল জনপ্রিয়তা আছে। বৌদ্ধ যুগে আমরা ময়মনসিংহ সম্পর্কে জানতে পারি। ব্রহ্মপুত্র নদীর তীরে এই ময়মনসিংহ অবস্থিত। তখন কামরূপ রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল এই ময়মনসিংহ। ৩০২ খ্রিস্টপূর্বের দিকে আলেকজান্ডারের নির্দেশে মেগান্থিনিস নামের এক গ্রীক পর্যটক এই ভারতবর্ষে আসেন। ইন্ডিকা নামের তাঁর রচিত বই থেকে ময়মনসিংহ নিয়ে এই তথ্য জানা যায়। চৈনিক পরিব্রাজক হিউয়েন সাং এর বর্ণনা থেকে জানা যায় tp://blog.bdlst.com/category/%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%97/%E0%A6%AE%E0%A7%9F%E0%A6%AE%E0%A6%A8%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%82%E0%A6%B9/%E0%A6%AE%E0%A6%AF%E0%A6%BC%E0%A6%AE%E0%A6%A8%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%82%E0%A6%B9" target="_blank">ময়মনসিংহ অনেক বড় এলাকা ছিল। ব্রহ্মপুত্রের পূর্বে অবস্থিত পূর্ব ময়মনসিংহ তখন কামরূপ রাজ্যের মধ্যে ছিল। আর পশ্চিম দিকে অবস্থিত পূর্ব ময়মনসিংহ ছিল পুণ্ড্রবর্ধনের মধ্যে।

 

হিন্দু শাসনামলে বিভিন্ন রাজা শাসন করেন এই বাংলায়। এর মধ্যে যখন পাল বংশের আমলে ৭৫৬ থেকে পরবর্তী ১২০ বছর ময়মনসিংহ এবং তার অঞ্চলে শিশুপাল, হরিশ্চন্দ্র পাল ও যশোপাল নামক ক্ষুদ্র নৃপতি শাসন করেন। এরপর সেন বংশ প্রতিষ্ঠিত হল। সেন বংশের প্রতিষ্ঠাতা বীরসেন বা আদিশূর। তাঁর প্রপৌত্র বিজয়সেন কামরূপ দখল করে। এজন্য ময়মনসিংহে বিজয়সেন শাসনকর্তা ছিলেন। তাঁর ছেলে বল্লালসেন এরপর রাজা হলে বঙ্গকে পাঁচ ভাগে ভাগ করা হয়। বলা হয় তখন পূর্ব ময়মনসিংহ কামরূপের মধ্যে ও পশ্চিম ময়মনসিংহ বঙ্গ রাজ্যের মধ্যে থাকে। তবে এটি নিয়ে মতবিরোধ আছে।

 

 

ময়মনসিংহের ইতিহাস
এরপর আসে মুসলিম শাসন। বাংলার শেষ হিন্দু রাজা লক্ষণ সেনের আমলে এ অঞ্চলে নিজেদের মধ্যে কোন্দল দেখা দেয়। ১২০৪ সালে মুসলিম সেনাপতি ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খলজি নদীয়াতে আসেন এবং আক্রমন করেন। লক্ষণ সেন তাদের প্রতিরোধ করেননি, বরং দক্ষিণপূর্ব বাংলায় চলে যান। বখতিয়ার খলজি উত্তর ও উত্তরপশ্চিম অঞ্চল দখল করেন কিন্তু পূর্ব বাংলা দখল করতে পারেননি। তিনি যদিও কামরূপ অঞ্চলে এস

?ছিলেন। কিন্তু ব্রহ্মপুত্র নদ পার হতে পারেননি। তাই ময়মনসিংহ তখনও মুসলিমদের হাতে আসেনি। ইখতিয়ার উদ্দিন উজবেক পরে রাঙ্গামাটি দিয়ে কামরূপ আক্রমন করেন। এসময় কামরূপের রাজা পালিয়ে গেলে জঙ্গলবাড়ি, মদনপুর, গড়দলিপা, ভাটী ইত্যাদি অঞ্চলে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র স্বাধীন রাজ্য গড়ে উঠে। কিন্তু কামরূপের রাজা ফিরে আসে এবং যুদ্ধে জয়ী হন। উজবেক এই যুদ্ধে মারা যান। ফলে ময়মনসিংহ তখনও মুসলিমদের হাতে আসেনি। এমনকি গিয়াস উদ্দিন বলবনের সময়তেও ময়মনসিংহ হিন্দু রাজাদের এলাকা ছিল।

 

 

ময়মনসিংহ প্রথম মুসলিমরা আসে দ্বিতীয় ফিরোজ শাহের আমলে। তিনি সেনাপতি মজলিস খাঁ হুমায়ূনকে নিয়োজিত করেন ব্রহ্মপুত্র অতিক্রম করার অভিজানে। মজলিস খাঁ ময়মনসিংহে প্রবেশ করে শেরপুর দখল করতে সক্ষম হন। তিনি রাজা দলিপ সামান্তকে পরাজিত করেন। এভাবে প্রথম ময়মনসিংহে মুসলিমদের প্রবেশ ঘটে। এরপর ১৪৯৮ সালে হুসেন শাহ্‌ বাংলার সিংহাসনে বসেন এবং সমগ্র ময়মনসিংহে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠা করেন।
এরপর ব্রিটিশ শাসন আসে এবং সবশেষে বাংলাদেশের জন্ম হয়। এখন ময়মনসিংহ একটি বিভাগ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। ময়মনসিংহ নাম নিয়েও অনেক বিতর্ক আছে। যদিও সঠিক ইতিহাস কি তা জানা যায়না। অনেকে সম্রাট আকবরের সেনাপতি মান সিংহের নাম থেকে এই নাম এসেছে বলে মনে করেন। অনেকে বলেন 6%97/%E0%A6%AE%E0%A7%9F%E0%A6%AE%E0%A6%A8%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%82%E0%A6%B9/%E0%A6%AE%E0%A6%AF%E0%A6%BC%E0%A6%AE%E0%A6%A8%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%82%E0%A6%B9" target="_blank">ময়মনসিংহ নাম অনেক আগে থেকেই ছিল।
ময়মনসিংহ বাংলাদেশের অন্যতম বিশেষ একটি অঞ্চল। এখানে অনেক ভাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে। আছে অনেক নিদর্শন। এই এলাকা বিশাল ইতিহাস নিয়ে এখনও দাঁড়িয়ে আছে বাংলাদেশের বুকে। সগৌরবে।

 

 

তথ্যসূত্র

Link

Link